সোমবার, ৭ সেপ্টেম্বর, ২০১৫

ব্লগার পোষ্ট প্রমোট করার ৫টি সহজ ও কার্যকর পদ্ধতি।

ব্লগার পোষ্ট প্রমোট করার ৫টি সহজ ও গুণগত পদ্ধতি

আপনার অজান্তেই পড়ে রয়েছে কতগুলো সহজ পদ্ধতি, যেগুলো দিয়ে আপনি সহজেই আপনার ভিজিটরদের কাছে আপনার ব্লগের নতুন সহ পুরাতন পোষ্ট গুলো পৌছাতে পারেন। আপনি জানেন যে আপনার কাঙ্কিত ভিজিটরার আপনার সবগুলো পোষ্ট ভিউ করছে। কিন্তু আমরা জানি যে অধিকাংশ ভিজিটররা আপনার পড়ে থাকা পুরাতন পোষ্ট গুলো ভিউ করছে না। আজকের এই পোষ্টে আপনাদের দেখাতে চেষ্টা করবো, কিভাবে আপনার ব্লগারের নতুন সহ পুরাতন পোষ্ট গুলো আপনার ভিজিটরদের কাছে প্রমোট করে আপনার টার্গেটেড ভিজিটর বৃদ্ধি করবেন।


তার আগে চলুন সংক্ষেপে জেনে নেই, ব্লগারের পুরাতন পোষ্ট গুলো কেনও প্রমোট করতে হবে? এর ফায়দাটাই বা কি?

মনে করুন আপনি প্রতিদিন আপনার ব্লগে কম-পক্ষে ৫ থেক ৬ টি পোষ্ট করেন (আরও বেশী বা কম হতে পারে)। হতে পারে আপনি এই পোষ্ট গুলো একবার বা দুইবার শেয়ার করেছেন সোসিয়াল মেডিয়াতে এবং ৩ থেকে ৪ বার আপনি নিজে ভিউ করেছেন। এখন চলে যান এক সাপ্তাহ পরে। আজকে যে ৬টি পোষ্ট করছেন এক সাপ্তাহ পরে কিন্তু এই ৬ টি পোষ্ট প্রায় ৪০ টি পোষ্টের নিচে পড়ে গেছে।

এখন চিন্তা করে দেখুন আপনার কাঙ্কিত সব ভিজিটররাই কি আপনার পোষ্ট গুলো ভিউ করেছে? তার হাতে কি সময় আছে যে ৪০ টি পোষ্টের পরে গিয়ে তার প্রয়োজনীয় ৬টি পোষ্ট দেখার? এবার হয়ত চিন্তা করছেন যে, আমার পোষ্ট গুলো তো সার্চ ইঞ্জিন থেকে সার্চ করেও পেতে পারে? আরে ভাই আপনার ব্লগ কি সার্চ ইঞ্জিনের টপে আছে সে কেউ সার্চ করলেই আপনার ব্লগ চলে আসবে? আর বাংলা ব্লগ হলেই তো কোন কথাই নেই। ঝামেলা আছে রে ভাই, ঝামেলা আছে। এতো সহজ না।

এভারেজ ট্রাফিক গুলো ধরে রাখার জন্য আপনার পুরাতন পোষ্ট গুলো নতুন করে প্রোমোট করা প্রয়োজন। এজন্য কোন প্রকার ঝামেলায় না গিয়ে আমরা ৫ গুণগত, কার্যকর ও সহজ পদ্ধতি দেখবে ব্লগার পোষ্ট প্রোমোট করার। তাহলে চলুন শুরু করা যাক।


জনপ্রিয় পোষ্টঃ

জনপ্রিয় পোষ্টগুলোর প্রতি ভিজিটরদের দৃষ্টি তাকে অনেক বেশী। আপনার ব্লগে নির্দিষ্ট সংখ্যক কয়েকটি জনপ্রিয় পোষ্ট দেখান। এক্ষেত্রে ৫ - ১০ টি পোষ্ট উত্তম। অনেক ব্লগেই জনপ্রিয় পোষ্ট উইডগেট থাকে, এটা কমন বিষয়। তবে অনেক ব্লগেই থাকে না। যদি আপনার ব্লগে জনপ্রিয় (Popular Posts widget) উইডগেট না থাকে তাহলে এখনই এড করে নিন। এখানে থেকে ভালো পরিমাণ ভিজিটর পাওয়া যায়। আর জনপ্রিয় পোষ্টগুলো দেখানোর উত্তম স্থান হল সাইড বার। 

দেখুনঃ 


রিলেটেড পোষ্টঃ 

জি, এটাও কমন একটা বিষয়। কমন হলেও ক্রমানুসারে আমায় লেখতে হবে। আপনি অনেক জনপ্রিয় ব্লগে দেখে থাকবেন যে, তারা রিলেটেড পোষ্ট উইডগেট ব্যবহার করে পোষ্টের একদম নিচে। আমার জানা মতে সব ব্লগার টেমপ্লেট এই রিলেটেড পোষ্ট উইডগেট থাকে। তাই এটা নিয়ে বিস্তারিত লেখার কোন দরকার নেই। তবে এটার কাজ হল, বর্তমান পোষ্টের সাথে সম্পর্কিত পুরাতন পোষ্ট গুলো দেখানো। এতে করে ভিজিটররা যে পোষ্টটি ভিউ করছে, তার সাথে সম্পর্কিত বাকি পোষ্টগুলো ও দেখতে পারে।

ব্লগার পোষ্ট প্রমোট করার ৫টি সহজ ও গুণগত পদ্ধতি

সোসিয়াল মেডিয়াতে পুনরায় শেয়ার করুনঃ

আপার ব্লগের পুরাতন পোষ্টগুলো পুনরায় সোসিয়্যাল মেডিয়াতে শেয়ার করুন। আপনার পোষ্টগুলো ভিজিটরদের নজরে আনতে হলে সোসিয়াল শেয়ার হবে একটি অন্যতম মাধ্যম। সাপ্তাহে একটি দিন রেখে দিন শুধু ব্লগ মনিটরিং করার জন্য। সেদিন দেখে দেখে পুরাতন পোষ্ট গুলো শেয়ার দিন আপনার ফেইসবুক পেইজ, ফেইসবুক গ্রুপ , গুগল প্লাস প্রোফাইল, গুগল প্লাস কমিউনিটি ইত্যাদি সোসিয়্যাল মেডিয়াতে। এই সোসিয়াল শেয়ার আপনার পুরাতন পোষ্টগুলোতে একটি নতুন আলোচনা তৈরী করতে পারে। 


ব্লগার পোষ্ট প্রমোট করার ৫টি সহজ ও গুণগত পদ্ধতি

ইন্টারলিংকিংঃ

বিষয়টা এসইও এর জন্য অনেক গুরুত্বপূর্ন্য। বিষয়টা সহজ করে বলি। কোন পোষ্টের মধ্যে অন্য পোষ্টের লিংক শেয়ার করাকেই ইন্টারলিংকিং বলে। উপরে দেখুন আমি বেশ কয়েকটা ইন্টারলিংক এড করেছি। এভাবে আপনি আপনার প্রত্যেকটি নতুন পোষ্টে পুরাতন পোষ্ট গুলোর লিংক এড করে দিবেন। এক্ষেত্রে আপনাকে একটু সতর্কতা অবলম্বন করতে হবে। আপনাকে এমন ভাবে ইন্টারলিংক যোগ করতে হবে যেন ভিজিটররা বিভ্রান্ত না হয়। এখন আপনি ইন্টারলিংকে বললেন এক আর ভিতরের লিংক আরেক। এটা হলে ভিজিটর হারাবেন এমনকি সার্চ ইঞ্জিনেও আপনার র‍্যাঙ্ক কমতে পারে। এক্ষেত্রে  আমার ইন্টার লিংক গুলো একটু ফলো করে দেখুন কিভাবে ইন্টারলিংকিং করেছি।

ব্লগার পোষ্ট প্রমোট করার ৫টি সহজ ও গুণগত পদ্ধতি


ব্লগ সার্চঃ

ইহা কিন্তু একটি গুরুত্বপূর্ন্য অংশ। হে, সব ব্লগেই সার্চ বক্স থাকে। কিন্তু অনেকের ব্লগেই দেখলাম সার্চ বক্স আছে ঠিকই কিন্তু কোথায় আছে সেটা খুজে বের করতে সময় লেগে গেল ২০-২৫ সেকেন্ড। একটা কথা মনে রাখবেন, ভিজিটরদের সময়ের মূল্য আছে। একটু এদিক সেদিক হলে কিন্তু তারা বেশী সময় খরচ করতে চাইবে না। 

আপনার ব্লগে সার্চ বক্স টিকে চোখের সামনে রাখুন। প্রয়োজনে একটু বড় আকারে দিন। যেন ভিজিটরদের চোখে পড়ে। প্রয়োজনে গুগল কাস্টম সার্চ বক্স ব্যবহার করুন। এতে পুরাতন পোষ্ট খুজে পেতে সহায়তা করবে। 

ব্লগার পোষ্ট প্রমোট করার ৫টি সহজ ও গুণগত পদ্ধতি



আশা করি পোষ্ট আপনাদের অনেক সহায়তা করবে। যদি পোষ্টটি আপনাদের উপকারে আসে তাহলে শেয়ার করতে ভুলবেন না। তাছাড়া এই পোষ্ট সম্পর্কে আপনাদের মতামত জানাতে পারেন কমেন্ট করে। ধন্যবাদ সবাইকে এতক্ষন সাথে থাকার জন্য।

1 টি মন্তব্য: